Cancer

স্তন ক্যান্সার বা ব্রেস্ট ক্যান্সার সম্পর্কে প্রত্যেক নারীর যা জানা প্রয়োজন

NeuroGen

NeuroGen

17 May 2021

স্তন ক্যান্সারে নারীদের মৃত্যুর হার সবচেয়ে বেশি। সাধারণত ৫০ বছরের বেশি বয়সীদের মধ্যে এই ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি। এই ক্যান্সারের ব্যাপারে সকলকে সচেতন করার চেষ্টা চালানো হচ্ছে। কারণ, শুধু নারী নয় পুরুষদের মধ্যেও স্তন ক্যান্সার দেখা দিতে পারে। যদিও পুরুষদের স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার হার খুবই কম। এক হিসেবে দেখা যায় যুক্তরাজ্যে প্রতিবছর ৪১ হাজার মহিলা স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হন, সেই তুলনায় মাত্র ৩০০ জন পুরুষ এই রোগে আক্রান্ত হন।

লক্ষণ বা উপসর্গ 

  • স্তনের কোন অংশ চাকা চাকা হয়ে যাওয়া অথবা কোন লাম্প দেখা যাওয়া
  • স্তনের আকার বা আকৃতির পরিবর্তন
  • স্তনবৃন্তের আকারে পরিবর্তন
  • স্তনবৃন্ত থেকে রক্ত বা তরল পদার্থ বের হওয়া
  • স্তনবৃন্তের আশেপাশে রাশ বা ফুসকুড়ি দেখা যাওয়া
  • বগলে ফুলে যাওয়া বা চাকা দেখা দেয়া
  • স্তনের ভেতরে গোটা ওঠা বা শক্ত হয়ে যাওয়া

প্রতিরোধ ও প্রতিকার

৫০ থেকে ৭০ বছর বয়সী নারীদের প্রতি তিনবছর পর পর ব্রেস্ট স্ক্রিনিং বা ম্যামোগ্রাম করানো উচিত। ম্যামোগ্রাম হচ্ছে এক্স-রে’র মাধ্যমে নারীদের স্তনের অবস্থা পরীক্ষা করা। সাধারণত প্রাথমিক অবস্থায় ক্যান্সার এতো ছোট থাকে যে বাইরে থেকে সেটা বোঝা সম্ভব হয় না। কিন্তু ম্যামোগ্রামের মাধ্যমে খুব ছোট থাকা অবস্থাতেই বা প্রাথমিক পর্যায়েই ক্যান্সার নির্ণয় করা যায়। প্রাথমিক পর্যায়ে ধরা পরলে ক্যান্সার থেকে সুস্থ্য হয়ে ওঠার সম্ভাবনা থাকে। আর এই পরীক্ষার জন্য মাত্র কয়েক মিনিট সময় লাগে।

ঝুঁকির মাত্রা বেশি যাদের

৫০ বছরের বেশি বয়সীদের ঝুঁকির মাত্রা সবচেয়ে বেশি। স্তন ক্যান্সারে যতোজন আক্রান্ত হন তাদের ৮০ ভাগেরই বয়স হচ্ছে ৫০-এর বেশি। সেই সাথে যাদের পরিবারে কারোর স্তন ক্যান্সার রয়েছে তাদেরও এই ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে প্রচুর। কিন্তু বাংলাদেশে কতজন নারী এই ব্যাপারে সচেতন? কতজন টেস্ট করে দেখেন যে তাদের স্তন ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা আছে কি না?

কীভাবে বুঝবেন আপনি স্তন ক্যান্সার এর ঝুঁকিতে আছেন?

বাংলাদেশের বিপুল সংখ্যক নারী স্তন ক্যান্সার এর ঝুঁকির মধ্যে বসবাস করছেন। অথচ এ ব্যাপারে তাদের বেশিরভাগের কোন ধারণা নেই। আপনার পরিবারের মা খালা নানী কিংবা দাদীর যদি স্তন ক্যান্সার হয়ে থাকে, তাহলে আপনারও একটা নির্দিষ্ট বয়স পর ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। কিন্তু ভয়ের কারণ নেই। সঠিক সময় ক্যান্সার এর সম্ভাবনা নির্নয়ের মাধ্যমে এই ক্যান্সার প্রতিরোধ করা সম্ভব খুব সহজেই। এই জন্য প্রয়োজন জেনেটিক টেস্ট। নিউরোজেন আছে আপনার পাশে। নিউরোজেন বাংলাদেশের একমাত্র প্রতিষ্ঠান যারা জেনেটিক টেস্ট এর মাধ্যমে খুব সহজেই স্তন এবং জরায়ুর ক্যান্সারের সম্ভাব্যতা নির্ণয় করা যাবে।

Related Blogs

ক্যান্সার নিয়ে কিছু কথা যা সবার জানা থাকা উচিত

ক্যান্সার নিয়ে কিছু কথা যা সবার জানা থাকা উচিত

0.26 Min

১৯৭১ সালের দিকে আমেরিকার তৎকালীন প্রেসিডেন্ট রিচার্ড নিক্সন ক্যান্সার এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ান। ক্যান্সারের গবেষণাতে বিপুল পরিমাণ টাকা খরচ করেন এবং তিন...

ওভারিয়ান ক্যান্সার বা জরায়ুর ক্যান্সার এর পরিচিতি

ওভারিয়ান ক্যান্সার বা জরায়ুর ক্যান্সার এর পরিচিতি

0.08 Min

জরায়ুমুখ ক্যান্সার নারীদের জন্য একটি ভয়াবহ ব্যাধি এবং বিশ্বব্যাপী নারীদের মৃত্যুর অন্যতম প্রধান কারণ। বিশ্বে প্রতি দুই মিনিটে একজন নারী জরায়ুমুখ ক্...